শিরোনাম

জননেতা মারফত আলীর ২৪ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী

marfot ali leaderস্টাফ রিপোর্টার : ১৯৯১ সালের ১৭ই ফেব্রুয়ারী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের গণসংযোগকালে ইশালমারীতে আত-তায়ীর গুলিতে নিহত হন কুষ্টিয়ার বিএলএফ’র প্রধান, মিরপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান, উত্তরবঙ্গের প্রখ্যাত কৃষক নেতা, আমলা সরকারী ডিগ্রী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা জননেতা শহীদ মারফত আলী। তার ২৪ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে আমলায় বিভিন্ন কর্মসূচীর আয়োজন করা হয়েছে। জাসদ নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা মারফত আলী ১৯৯১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাসদের মনোনিত প্রার্থী হিসেবে কুষ্টিয়া-২ আসনে নির্বাচনে প্রতিদন্দীতা করছিলেন। সেই সময় নির্বাচনী প্রচারনায় গেলে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার আমবাড়িয়া ইউনিয়নের ইশালমারী মাঠের মধ্যে সন্ত্রাসী চরমপন্থীরা মারফত আলীকে ব্রাশফায়ার করে হত্যা করে।  সেই থেকে এ এলাকার জনগন প্রতিবছর এ দিনটি যথাযথভাবে পালন করছে।
আমলা সরকারী ডিগ্রী কলেজ প্রাঙ্গনে শহীদ মারফত আলী স্মৃতি সংসদের আয়োজনে স্মরণ সভা, মিলাদ মাহফিল, কালো ব্যাজ ধারণ, কোরআন খতম ও মরহুমের মাজারে পূষ্প অর্পণ এর আয়োজন করা হয়েছে। দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানে শহীদ মারফত আলী স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক ও জাসদ কেন্দ্রীয় নেতা মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর অবসরপ্রাপ্ত শেখ দলীল উদ্দিন আহমদ।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন, জাসদ কেন্দ্রিয় নেতা আব্দুল আলীম স্বপন, জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, উপজেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক আহম্মদ আলী। আরো বক্তব্য রাখবেন মিরপুর উপজেলা জাসদের সভাপতি মহাম্মদ শরীফ, আলমডাঙ্গা পৌরসভার সাবেক মেয়র ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সবেদ আলী, মিরপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নজরুল করীম, সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন খান, ৭০’র অগ্নিসেনা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈন উদ্দিন আহম্মেদ, মিরপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান বাহাদুর শেখ, দৌলতপুর উপজেলা জাসদের সভাপতি অধ্যক্ষ রেজাউল হক, জেলা জাসদের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক জিল্লুর রহমান, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিয়াত আলী লালু, মালিহাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বদর উদ্দিন ভদু, আমলা সদরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহাজ্জেল হোসেন, জাহানারা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বজলুর রশিদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা রাহাত আলী, আব্দুর রশিদ ফুরকান, আমলা বাজার কমিটির সভাপতি সিদ্দিক আলী, জেলা জাসদের সহ-সম্পাদক আফতাব উদ্দিন, প্রচার সম্পাদক কারশেদ আলম প্রমুখ।
স্মরণ সভায় আয়োজক কমিটি জেলার সকলকে উপস্থিত হওয়ার জন্য আমন্ত্রন জানিয়েছেন।

224 total views, 1 views today

121,505 total views, 286 views today

প্রধান খবর

  • আজ ৯ ডিসেম্বর কুমারখালী হানাদার মুক্ত দিবস

    কুমারখালি প্রতিনিধি : ১৯৭১ সালের ৯ ডিসেম্বর এই দিনে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে কুমারখালীর মুক্তিযোদ্ধারা বিজয় ছিনিয়ে এনেছিলেন এবং কুমারখালীকে হানাদার মুক্ত করেছিলেন।

    ১৯৭১ সালের ৭ ডিসেম্বর সকালে মুক্তিযোদ্ধারা পরিকল্পিত ভাবে কুমারখালীতে প্রবেশ করে শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত কুন্ডুপাড়ার রাজাকারদের ক্যাম্প আক্রমণ করেন। রাজাকার কমান্ডার ফিরোজ বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের তুমুল যুদ্ধ শুরু হয়।

    এ খবর কুষ্টিয়া জেলা শহরে অবস্থানরত পাক-সেনাদের কাছে পৌঁছালে তারা দ্রুত কুমারখালীতে এসে গুলিবর্ষণ করতে থাকলে পুরো শহর আতঙ্ক গ্রস্থ হয়ে পড়ে। এবং মুক্তিযোদ্ধারা তাদের অkkkkপর্যাপ্ত অস্ত্র ও সংখ্যায় কম থাকায় শহর ত্যাগ করেন।

    এ সময় পাকিস্তানি বাহিনী ও রাজাকাররা কুমারখালী শহরজুড়ে হত্যাযজ্ঞ, অগ্নিসংযোগ ও লুটতরাজ শুরু করে।৭ ডিসেম্বরের যুদ্ধে পাকিস্তানী বাহিনীর হাতে আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা তোসাদ্দেক হোসেন ননী মিয়া শহীদ হন।
    পাকিস্তানী হানাদারদের হত্যাযজ্ঞের শিকার হয়েছিলেন মুক্তিকামী বীর বাঙালী সামসুজ্জামান স্বপন, সাইফুদ্দিন বিশ্বাস, আব্দুল আজিজ মোল্লা, শাহাদত আলী, কাঞ্চন কুন্ডু, আবু বক্কার সিদ্দিক, আহমেদ আলী বিশ্বাস, আব্দুল গনি খাঁ, সামসুদ্দিন খাঁ, আব্দুল মজিদ ও আশুতোষ বিশ্বাস মঙ্গল।

    পরবর্তীতে মুক্তিযোদ্ধারা সুসংগঠিত হয়ে ৯ ডিসেম্বর পাকবাহিনীর ক্যাম্পে (বর্তমানে কুমারখালী উপজেলা পরিষদ) আক্রমণ করেন।

    দীর্ঘসময় যুদ্ধের পর পাকিস্তানি বাহিনী মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণের কাছে টিকতে না পেরে দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় । ৯ ডিসেম্বরের যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে রাজাকার কমান্ডার খুশি মারা যায়।

    এইদিন কুমারখালী শহর হানাদার মুক্ত হওয়ার পর সর্বস্তরের জনতা এবং মুক্তিযোদ্ধারা রাস্তায় নেমে আনন্দ মিছিল বের করেন।

    6,518 total views, 228 views today

আজকের খবর

সম্পাদক ও প্রকাশক : খালিদ হাসান সিপাই.

নির্বাহী সম্পাদক : মাজহারুল হক মমিন।

বড় জামে মসজিদ মার্কেট, এন এস রোড কুষ্টিয়া।

০১৭১৬২৬৮৮৫৮, E-mail: Kushtiardiganta@gmail.com .