কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় ৬ জনের ফাঁসি দিয়েছে আদালত

shohag
By shohag February 7, 2017 14:23

কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় ৬ জনের ফাঁসি দিয়েছে আদালত

স্টাফ রিপোর্টাস॥ কুষ্টিয়ায় আবু বক্কর সিদ্দিক(৩০) নামে এক ভ্যান চালক হত্যা মামলায় ৬ জনকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন সাজ্জাদ, মাজেদ, শুকচাদ,রাশিদুল ইসলাম,কালাই ও মনছের আলী। আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টায় কুষ্টিয়ার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক রেজা মোঃ আলমগীর হাসান এ রায় প্রদান করেন। এসময় ৫ আসামী আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এদের মধ্যে রাশিদুল ইসলাম নামে এক আসামী পলাতক রয়েছেন।
কুষ্টিয়া আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী জানান, ২০১২ সালের ১০ জুন রাত সাড়ে ৭টায় সদর উপজেলার জোতপাড়া গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে ভ্যানচালক আবু বক্কর সিদ্দিককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় একই এলাকার সাজ্জাদ ও মাজেদ নামে দুই যুবক।
পরের দিন সকাল ৭টায় জোতপাড়া গ্রামের কাঞ্চিখালী মাঠের মধ্যে আবু বক্কর সিদ্দিকের গলাকাটা লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ঐ দিন নিহতের বড় ভাই নুর হক মন্ডল বাদী হয়ে সাজ্জাদ ও মাজেদকে প্রধান আসামী করে ৭জনের নাম উল্লেখ করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এদের মধ্যে কামরুল ইসলাম পুলিশের সাথে ক্রসফায়ারে নিহত হন।
স্বাক্ষ্য প্রমানের ভিত্তিতে আসামীগনের বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমানীত হওয়ায় আজ বিচারক তাদের ফাঁসির আদেশ দেন। পরে তাদেরকে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়।
11
কুষ্টিয়া, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ ॥ কুষ্টিয়ায় আবু বক্কর সিদ্দিক(৩০) নামে এক ভ্যান চালক হত্যা মামলায় ৬ জনকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন সাজ্জাদ, মাজেদ, শুকচাদ,রাশিদুল ইসলাম,কালাই ও মনছের আলী। আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টায় কুষ্টিয়ার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক রেজা মোঃ আলমগীর হাসান এ রায় প্রদান করেন। এসময় ৫ আসামী আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এদের মধ্যে রাশিদুল ইসলাম নামে এক আসামী পলাতক রয়েছেন।
কুষ্টিয়া আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এ্যাডভোকেট অনুপ কুমার নন্দী জানান, ২০১২ সালের ১০ জুন রাত সাড়ে ৭টায় সদর উপজেলার জোতপাড়া গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে ভ্যানচালক আবু বক্কর সিদ্দিককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় একই এলাকার সাজ্জাদ ও মাজেদ নামে দুই যুবক।
পরের দিন সকাল ৭টায় জোতপাড়া গ্রামের কাঞ্চিখালী মাঠের মধ্যে আবু বক্কর সিদ্দিকের গলাকাটা লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ঐ দিন নিহতের বড় ভাই নুর হক মন্ডল বাদী হয়ে সাজ্জাদ ও মাজেদকে প্রধান আসামী করে ৭জনের নাম উল্লেখ করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এদের মধ্যে কামরুল ইসলাম পুলিশের সাথে ক্রসফায়ারে নিহত হন।
স্বাক্ষ্য প্রমানের ভিত্তিতে আসামীগনের বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমানীত হওয়ায় আজ বিচারক তাদের ফাঁসির আদেশ দেন। পরে তাদেরকে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

shohag
By shohag February 7, 2017 14:23