ঢাকাThursday , 17 February 2022
  1. epaper
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও অপরাধ
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইতিহাস ঐতিহ্য
  6. ইসলামি দিগন্ত
  7. কুষ্টিয়ার সংবাদ
  8. কৃষি দিগন্ত
  9. খেলাধুলা
  10. গণমাধ্যম
  11. জনদূর্ভোগ
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. তথ্য প্রযুক্তি
  15. দিগন্ত এক্সক্লুসিভ

পরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত মাস্ক ব্যাগে বা থুতনিতে

দিগন্ত অনলাইন
February 17, 2022 1:08 am
Link Copied!

সায়েদাবাদে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরুর অপেক্ষায় ছিল হানিফ পরিবহনের একটি বাস। বাসের অধিকাংশ যাত্রীর মুখেই মেলেনি মাস্ক। তবে সবার কাছেই মাস্ক ছিল। কেউ মাস্ক রেখেছেন তাদের ব্যাগে আবার কেউ রেখেছে থুতনিতে। মাস্ক পরিধানের ব্যাপারে সবার মধ্যে উদাসীনতা দেখা গেছে। বাস মালিক ও শ্রমিকরা বলছে, মাস্ক পরা ও স্যানিটাইজার ব্যবহারের বিষয়ে যাত্রীদের অনুরোধ করা হলেও তারা শুনছেন না। হানিফ পরিবহনের ষাটোর্ধ্ব যাত্রী সোলাইমান হোসেন বলেন, ‘হায়াত-মউত আল্লাহর হাতে। মাস্ক পরলে যে আমার কিছু হবে না তার নিশ্চয়তা কি? আমি অসুস্থ হলেও কোনো দিন ওষুধ খাইনি।

আল্লাহ মৃত্যু যেদিন লিখে রেখেছে সেদিন হবেই।’
আল-মোবারাকার বাসের জন্য অপেক্ষা করা জোবাইদা খাতুন তার দুই সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে যাবেন সিলেটে। তাদের কারও মুখেই মাস্ক নেই। মাস্ক না থাকা প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, ‘কিছুক্ষণ আগেই মাস্ক খুললাম। সবসময় মাস্ক পরে থাকা সম্ভব হয় না। দম বন্ধ হয়ে আসে। মাস্ক ব্যাগে রেখে দিয়েছি। যখন মানুষের সামনে যাচ্ছি তখন মাস্ক পরছি।’
আল-মোবারাকার বাসের চালকের মুখেও দেখা মেলেনি মাস্ক। মাস্ক না থাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সবসময় মুখে মাস্ক রেখে গাড়ি চালানো সম্ভব হয় না। মাঝে মাঝে মাস্ক খুলে রাখি।’
যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি না মানা প্রসঙ্গে এই চালক বলেন, ‘আমরা মাস্ক পরা ও স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা বলে দিচ্ছি। কিন্তু যাত্রীরা গুরুত্ব দিচ্ছে না। কিছু সময়ের জন্য মাস্ক পরলেও কিছুক্ষণ পরেই তা খুলে ফেলছে।’ লাল-সবুজ পরিবহনের নোয়াখালীর যাত্রী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী রোহান মুখে মাস্ক না থাকার বিষয়ে বলেন, ‘শ্বাসকষ্টের কারণে বেশিক্ষণ মাস্ক পরে থাকতে পারি না। এজন্য কিছুক্ষণ পর পর মাস্ক খুলে রাখতে হয়।’
পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের এক সদস্য বলেন, ‘পরিবহন মালিক সমিতির পক্ষ থেকে লোগো সম্বলিত হাজার হাজার মাস্ক বানিয়ে সকল শ্রমিকদের দেয়া হয়েছে। আমরা টার্মিনালে প্রতিনিয়ত মাইকিং করছি। মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহারের জন্য প্রতিটি গাড়িতে বলা হচ্ছে। কিন্তু যাত্রীরা মানছে না। যাত্রীদের সহযোগিতা ছাড়া এটা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না।’ পরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি না মানা প্রসঙ্গে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ মানবজমিনকে বলেন, ‘সব মালিক ও চালকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিবহন পরিচালনার বিষয়ে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আমরা বিষয়টি প্রতিনিয়ত তদারকি করছি। কেউ যদি স্বাস্থ্যবিধি না মেনে গাড়ি পরিচালনা করে থাকে সেক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র আমাদের নির্দেশনা যথেষ্ট না। এখানে জনগণেরও ভূমিকা রাখতে হবে। অধিকাংশ মানুষই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে চায় না। করোনার প্রকোপ বাড়ছে। আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে।’

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।