ঢাকাFriday , 5 February 2021
  1. epaper
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও অপরাধ
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইতিহাস ঐতিহ্য
  6. ইসলামি দিগন্ত
  7. কুষ্টিয়ার সংবাদ
  8. কৃষি দিগন্ত
  9. খেলাধুলা
  10. গণমাধ্যম
  11. জনদূর্ভোগ
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. তথ্য প্রযুক্তি
  15. দিগন্ত এক্সক্লুসিভ

কুষ্টিয়ার আইলচারায় তলিয়ে যাওয়া শতাধিক বিঘা বোরো জমি রক্ষা করলো এলাকাবাসী

Link Copied!

কুষ্টিয়ার আইলচারায় অনিয়মতান্ত্রিকভাবে মাঠের ধানী জমি কেটে জলাশয় তৈরি করেন এলাকার প্রভাবশালী এক ব্যক্তি। পানি নিস্কাষনের পথ বন্ধ করে ওই জলাশয় তৈরি করায় জিকে ক্যানেলের পানি আটকে শতাধিক বিঘা বোরো ধানের জমি তলিয়ে যায়। এলাকাবাসী প্রতিবাদ করেও প্রভাবশালীদের দাপটে গত দু’সপ্তাহ যাবৎ কোন সমাধান করতে পারেনি কৃষকরা। এ সমস্যার সমাধান নিয়ে প্রশাসনসহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ কামনা করলেও কেউই বিষয়টি নিয়ে সমাধানে এগিয়ে আসেনি। অবশেষে বিক্ষুব্ধ কৃষকরা দখলদারকে ড্রেজার দিয়েই অনিয়মতান্ত্রিকভাবে তৈরিকৃত জলাশয়ের বাঁধ কেটে দিয়েছে। এতে রক্ষা পেল আইলচারা-বাগডাঙ্গা দেয়া গাড়ী মাঠের শতাধিক বিঘা বোরোর জমি।
জানা যায়, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার আইলচারা ইউনিয়নের বড় আইলচারা দেয়াগাড়ী মাঠে অপরিকল্পিতভাবে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে একটি জলাশয় তৈরি করে আনিসউজ্জজামান আনিস বিশ্বাস। সরকারী ডোয়ার দখল করে প্রায় ১০ বিঘা জমির উপর ওই জলাশয় করেন তিনি। মাঠের পানি বের করার কোন রাস্তা না রেখেই তারা উঁচু করে ওই জলাশয়ের পাড় তৈরি করেন। এতে জিকে ক্যানেলের পানি ওই মাঠে আটকে শতাধিক বিঘা বোরোর জমি পানিতে তলিয়ে যায়।
একদিকে সরকারী ডোয়ার রাস্তা দখল, অপরদিকে পানি নিস্কাষণের সব পথ বন্ধ। এ নিয়ে চরম বিড়ম্বনায় পড়ে সেখানকার চাষীরা। বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারমান, মেম্বর, গ্রাম্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে অবহিত করেও কোন সমাধান পায়নি চাষীরা।
অবশেষে বিক্ষুব্ধ ওই এলাকার চাষীরা দখলদারদের ড্রেজার দিয়েই শুক্রবার সকালে ওই জলাশয়ের পাড় কেটে পানি বের করে দেন। এ সময় দখলদার আনিসউজ্জামান আনিস বিশ্বাসের পুত্র নুর আলম জিকুর লোকজন বাঁধা প্রদান করেন। বিক্ষুব্ধ কৃষকরা তাদেরকে ধাওয়া করে তাড়িয়ে দেন।
জলাশয়ের পাড়টি কেটে দেওয়ায় ওই মাঠে জলাবদ্ধ শতাধিক বিঘা বোরোর জমি জাগতে শুরু করেছে। এতে এলাকার চাষীরাও স্বস্তির নি:শ্বাস ফেলছে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।