ঢাকাSaturday , 15 May 2021
  1. epaper
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও অপরাধ
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইতিহাস ঐতিহ্য
  6. ইসলামি দিগন্ত
  7. কুষ্টিয়ার সংবাদ
  8. কৃষি দিগন্ত
  9. খেলাধুলা
  10. গণমাধ্যম
  11. জনদূর্ভোগ
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. তথ্য প্রযুক্তি
  15. দিগন্ত এক্সক্লুসিভ

গার্মেন্টকর্মীর লাশ নিয়ে সিএনজিচালক থানায়, বান্ধবী আটক

Link Copied!

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে এক সিএনজিচালক আজ শনিবার রুমা আক্তার (১৭) নামে এক গার্মেন্টকর্মীর লাশসহ তার বান্ধবী টুম্পাকে কৌশলে থানায় নিয়ে হাজির হয়েছেন। ঈদুল ফিতরের দিন রাতে রুমা ওই বান্ধবী টুম্পার বাসায় বেড়াতে গিয়েছিলেন। শনিবার ভোররাত ৪টার দিকে সেখানে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) হাসপাতলে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনার পর টুম্পার আচরণ সন্দেহজনক হলে সিএনজিচালক কৌশলে লাশসহ টুম্পাকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় নিয়ে আসেন। পুলিশ টুম্পাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।প্রাথমিকভাবে রুমার শরীরে কোথায় কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে এটি হত্যাকাণ্ড না স্বাভাবিক মৃত্যু- পুলিশ এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত কিছু বলতে পারেনি। রুমা কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার থানার গনেশপুর গ্রামের আব্দুর রহিমের মেয়ে ও নয়া আটি মুক্তিনগর আমির পাগলার বাড়ির ভাড়াটিয়া। তিনি মুনলাক্স গার্মেন্টে হেলপার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। আটক টুম্পা পটুয়াখালি জেলার সদর থানার বল্লভপুর কালুকাপুর গ্রামের ফজলুল হকের মেয়ে।একটি সূত্র জানায়, নাসিক আইলপাড়া এলাকায় একটি ড্যান্স একাডেমিতে তারা ঈদের দিন রাতে মদ পান করেন। সেখানে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। ভোর ৪টার দিকে রুমা আক্তারের মায়ের ফোনে টুম্পা ফোন দিয়ে জানান, রুমা অসুস্থ। তার অবস্থা খারাপ। খবর পেয়ে রুমার মা ও বোন ফারজানা খোঁজ করতে বের হন। কিন্তু বান্ধবী টুম্পার বাসা খুঁজে না পেয়ে বাসায় ফিরে যান।মা রহিমা বেগম জানান, রুমা আদমজী মুনলাইট গার্মেন্টে চাকরি করত। তার সাথে কাজ করত টুম্পা নামে একটি মেয়ে। সে পাঠানটুলি এলাকায় থাকত। গত ১২ মে বেতন পাওয়ার পর রুমা আর বাসায় আসেনি। পরে অনেক খুঁজেও তাকে পাওয়া যায়নি। পরে ঈদের আগের দিন রাতে রুমা ৩ নম্বর ওয়ার্ডে তার মায়ের বাসায় যায়। এ সময় তার মা তাকে বেতনের টাকার কথা জিজ্ঞেস করলে বলে, টুম্পা আপুর কাছে আছে। আমি ঈদের দিন সকালে আসব। একথা বলে সে আবার পাঠানটুলি টুম্পার বাসায় চলে যায়।তিনি আরো বলেন, ঈদের দিন বিকেলে টুম্পা তার মাকে ফোন দিয়ে রুমার অবস্থা খারাপ বলে জানায়। এরপর অসুস্থ অবস্থায় রুমাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।নিহতের মায়ের দাবি, তার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান বলেন, ময়নাতদন্তের আগে মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে স্পষ্ট করে কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার বান্ধবী টুম্পাকে আটক করা হয়েছে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।