রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন

কুমারখালীতে ভিক্ষুক হত্যা মামলার আসামিদের গ্রেফতারের দাবিতে গ্রামবাসীর মানবন্ধন ও বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ৭২ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১ জুন, ২০২১, ৪:৪৯ অপরাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক: কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে আবুহার মল্লিক নামে (৮০) বছর বয়সের এক ভিক্ষুককে পেটানোর ঘটনা ঘটে। পেটানোর দুই দিন পর হাসপাতাল থেকে ফিরে মৃত্যুর ঘটনায় মামলার ৪৪ দিন পেড়িয়ে গেলেও এখনো কোনো আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় মানববন্ধন বিক্ষোভ মিছিল করেছে গ্রামবাসাী।
রবিবার (৩০ মে) সকাল সাড়ে ১০টায় কুষ্টিয়ার কুমারখালী তরুন মোড় থেকে শুরু করে বঙ্গবন্ধৃর ম্যুরালের পাশ দিয়ে বাসস্ট্যান্ডে এই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বাস্ট্যান্ড থেকে মানববন্ধন শেষে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে কুমারখালী উপজেলা পরিষদ চত্বরে গিয়ে বিক্ষোভ করে। এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে এলাকার ৫ শতাধিক নারী পুরুষ অংশ নেয়।
মানববন্ধনে সোহেল রানাসহ একই এলাকার আলিফার ছেলে কামাল প্রামাণিক, বাহাদুরের ছেলে রাসেল, আলতাফের ছেলে আলামিনসহ আরও ৪/৫ জন অজ্ঞাতনামা আসামিকে গ্রেফতারের দাবিতে এলাকাবাসী বিভিন্ন শ্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন ও আসামিদের দ্রুত গ্রেফতার এবং দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানান।
উপজেলার সদকী ইউনিয়নের দরবেশপুর গ্রামের সোহেল রানাসহ একই এলাকার আলিফার ছেলে কামাল প্রামাণিক, বাহাদুরের ছেলে রাসেল, আলতাফের ছেলে আলামিনসহ আরও ৪/৫ জনে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে আসামি করে গত মাসের শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) রাতে নিহতের নাতি শিপন মল্লিক কুমারখালী থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর -২৪। কিন্তু মামলা হওয়ার পর ৪৪ দিন পেড়িয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কোনো আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।
প্রসঙ্গত: গত এপ্রিল মাসের ১২ তারিখ দুপুরে আবুহার মল্লিক নিজ বাড়ির পাশে ক্রয়কৃত জমিতে ঘর নির্মাণ করার জন্য মাটি ফেলছিলেন এসময় দরবেশপুর গ্রামের মৃত সামছুদ্দিন ডিলারে ছেলে সোহেল প্রামাণিকের নেতৃত্বে মৃত আলিফার ছেলে কামাল প্রামাণিক, বাহাদুরের ছেলে রাসেল, আলতাফের ছেলে আলামিনসহ আরও ৪/৫ জন এসে আবুহার মল্লিককে ওই জমিতে মাটি ফেলতে নিষেধ করেন আবুহার মল্লিক নিষেধ উপেক্ষা করে মাটি ফেলায় মৃত সামছুদ্দিন ডিলারে ছেলে সোহেল রানার নেতৃত্বে মৃত আলিফার ছেলে কামাল প্রামাণিক, বাহাদুরের ছেলে রাসেল, আলতাফের ছেলে আলামিনসহ আরও ৪/৫ জন তাকে ধাক্কা মেরে মাটিতে ফেলে দিয়ে লাথি মারতে আরম্ভ করে এর পর অভিযুক্ত ব্যক্তিরা পেটের ওপর বসে কিল, ঘুষি মারে এবং গলা চেপে ধরে গুরুতর আহত অবস্থায় রেখে দ্রুত চলে যায় তারা। এরপর স্বজনরা আবুহার মল্লিককে উদ্ধার করে কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিয়ে গেলে হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ভর্তির পরামর্শ দেন এর পর হাসপাতালে দুইদিন ভর্তির পর বুধবার (১৫ এপ্রিল) সকালে ছাড়পত্র নিয়ে আবুহার মল্লিক বাড়িতে আসেন। বাড়িতে এসেই তিনি মারা জান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর