বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন

কুমারখালীতে ঠিকাদারের গাফিলতিতে, সাধারণ মানুষের চরম ভোগান্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক : / ২১৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ১৯ জুন, ২০২১, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার সদকী ইউনিয়নের কালীতলা ভায়া-খোকসা-পাংশা সড়কে অবস্থিত শহরতলীর মহেন্দ্রপুর অভিমুখী প্রধান সড়কের গড়ের মাঠ ব্রিজটি ঠিকাদারের গাফিলতিতে নির্মাণ কাজ শেষ হাওয়া নিয়ে শঙ্কা স্থানীয়দের।বহুল কাঙ্ক্ষিত গড়ের মাঠের সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ কবে হবে’ তা নিয়ে সন্দিহান সাধারণ মানুষ। ব্রীজ নির্মাণের কাজ থেমে থাকায় । শুকনো মৌসুমে ধুলা, বর্ষা মৌসুমে কাদার কারণে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।
সেতুটি নির্মাণের জন্য ভাঙ্গা হলেও বিকল্প রাস্তা তৈরি করা হলেও’ এতে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। গত শুক্রবার ওই রাস্তা দিয়ে ভ্যান উল্টে ৪ জন আহত হয় । গত দুই মাসে অনেক ভ্যান, মটরবাইক্, ট্রাক, অটোরিকশা বিকল হয়ে পড়ে থাকতে দেখা গেছে। হেঁটে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে রাস্তাটি।
ব্রীজের নির্মাণকাজ ৩০ ভাগ শেষ হয়নি ১ বছরেও। কিন্তু এর পাশে মাটি দিয়ে ভরাট করা হয়েছে এতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে মাঠ জুড়ে। এতে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে।
উপজেলার বহু দিনের প্রত্যাশিত হাজার- হাজার মানুষের দুর্ভোগের অবসান ঘটিয়ে গড়ের মাঠে ব্রীজের নির্মাণ কাজ ( ১৭ ) জুলাই ২০২০ সালে কুষ্টিয়া -৪ মাননীয় সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ উদ্বোধন করেন । ২ কোটি ৪৯ লক্ষ টাকা ব্যায়ে নির্মিত কুমারখালী জিসি ,গোপগ্ৰাম জি,সি, সড়ক চেইনেজ ১১০০ মি: ও ২৫,০০ মি: প্রকল্পের নাম খুলনা বিভাগীয় পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্প। বাস্তবায়নে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর এলজিইডি কুমারখালী। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান খান এন্টারপ্রাইজ কুষ্টিয়া, কাজ সমাপ্ত সময় ২০২১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি তে শেষ হাওয়ায় কথা থাকলেও ঠিক কত দিনে নির্মাণ কাজ শেষ হবে তা কেউ জানে না।
স্থানীয় বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম জানান, নির্মাণাধীন ব্রীজের পাশে বিকল্প পথ তৈরি করায় প্রথম থেকেই পথচারীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এই রাস্তা দিয়ে কুমারখালী কুষ্টিয়া যোগাযোগের একটি মাত্র মাধ্যম কিন্তু ব্রীজটির কারণে চলাচল অসম্ভব। কলেজ শিক্ষার্থী তারেক বলেন, সাইকেল নিয়ে শুকনোর সময় ধুলা, বৃষ্টির সময় কাঁদার কারণে যেতে পারিনা। মদি ব্যাবসায়ী সবুজ বলেন, দোকানের মালামাল আনতে পারিনা এই ব্রীজের কারণে, এখন যে অবস্থা পায়ে হেঁটে চলাচল করতে অসুবিধা হচ্ছে। ভ্যান চালক শামীম জানান, খালি ভ্যান নিয়ে গেলেও উল্টে যায় ভ্যান। ব্রীজের পাশে যে রাস্তাটি আছে এখন মরণ ফাঁদ।
বর্ধিত সময়ের মধ্যেও অপেশাদার ঠিকাদারের গাফিলতির কারণে শেষ হচ্ছে না সেতুর কাজ । ফলে এ সেতু দিয়ে চলাচলকারী হাজার হাজার মানুষের প্রতিদিন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
সদকী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ বলেন, হাসিমপুর, জগন্নাথপুর, ভবানীপুর, আমবাড়িয়া, হাবাসপুর, এদ্রাকপুর, গ্ৰামের হাজাও মানুষের দুর্ভোগ ব্রীজটির জন্য দ্রুত নির্মাণ কাজ শেষ করা হোক সেই দাবি করছি।
কুমারখালী উপজেলা প্রৌকশলী আব্দুল রহিম জানান, ব্রীজের পিলারের ঢালাই জন্য কাজ চলছে। হঠাৎ বৃষ্টির কারণে কাজ বন্ধ আছে কয়েকদিনের মধ্যে কাজ শুরু হবে।
ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান নূরু কনস্ট্রাকশন মোঃ টিপু বলেন, ব্রীজের পিলারের কাজ চলোমান রয়েছে বৃষ্টির জন্য কাজ বন্ধ আছে। যতো দ্রুত সম্ভব ব্রীজের কাজ সম্পন্ন করা হবে।
ব্রীজ নির্মাণে জনবল বাড়িয়ে যথাসময়ে কাজ শেষ করার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর