বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন

অফিস কক্ষে নারী ধর্ষণ

যশোর প্রতিনিধি | / ৬৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বুধবার, ১০ নভেম্বর, ২০২১, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন

ডাক্তারের কাছ থেকে চিকিৎসা নিয়ে ফেরার পথে স্কুলের অফিস কক্ষে ঢুকিয়ে এক নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে যশোরের মণিরামপুর উপজেলার শ্যামনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি কাম প্রহরী আতাউর রহমানের বিরুদ্ধে। গতকাল সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এসময় ভুক্তভোগীর চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় দপ্তরি কাম প্রহরী আতাউর রহমানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, ওই নারী বাদি হয়ে সোমবার মধ্যরাতে মনিরামপুর থানায় মামলা করেন। আতাউর রহমান (৩১) একই গ্রামের মুনছুরের ছেলে।

ভুক্তভোগী নারী জানান, তিনি পার্শ্ববর্তী অভয়নগর উপজেলার একটি পাটকল কারখানায় শ্রমিকের কাজ করেন। সম্প্রতি কারখানায় কাজ করতে গিয়ে তার আঙ্গুলের নখ উঠে যায়। ঘটনার দিন সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে স্থানীয় ডাক্তারের কাছ থেকে ব্যান্ডেজ করে বাড়ি ফেরার পথে ওই বিদ্যালয়ের সামনে পৌঁছালে তাকে ডাক দেয় আতাউর। সাড়া না দিলে আতাউর এগিয়ে এসে তার হাত ধরে জোর করে বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে ঢুকিয়ে নিয়ে দরজা লাগিয়ে দিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে।

স্থানীয়রা জানান, বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে ওই নারীর সাথে আতাউর রহমানকে আপত্তিকর অবস্থায় পেয়ে উত্তেজিত জনতা গণধোলাই দিয়ে তাকে ওই অফিস কক্ষে আটকিয়ে রাখে। পরে পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়। এর আগেও স্থানীয়দের হাতে আতাউর নারীসহ বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে ধরা পড়ে।

থানার ওসি নূর-ই আলম সিদ্দিকী দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, খবর পেয়ে ওই রাতেই পুলিশ পাঠিয়ে আতাউরসহ ওই নারীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে নারীর বক্তব্য অনুযায়ী ধর্ষণ মামলা রেকর্ড করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আব্দুল হান্নান দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, আটক আতাউর রহমানকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুবিনা ইয়াসমিন দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, এ ঘটনায় দপ্তরি কাম প্রহরী আতাউর রহমানের নিয়োগের চুক্তি বাতিল করে তাকে স্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে প্রধান শিক্ষক আরও বলেন, এর আগে তাকে একই অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছিল।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সেহেলী ফেরদৌস দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, তার নিয়োগ চুক্তিভিত্তিক। বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে তার নিয়োগ বাতিলের কাগজপত্র অফিসে এসেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর