ঢাকাSunday , 20 September 2020
  1. epaper
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও অপরাধ
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইতিহাস ঐতিহ্য
  6. ইসলামি দিগন্ত
  7. কুষ্টিয়ার সংবাদ
  8. কৃষি দিগন্ত
  9. খেলাধুলা
  10. গণমাধ্যম
  11. জনদূর্ভোগ
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. তথ্য প্রযুক্তি
  15. দিগন্ত এক্সক্লুসিভ

কুমারখালীতে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত গ্রামবাসী

Link Copied!

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে লিজের পুকুরের মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে ঢাল, সরকি, রাম দা, বেকিসহ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে গ্রামবাসী সজ্জিত হলে স্থানীয় এক সংবাদকর্মী ক্যামেরায় দৃশ্যধারণ করা শুরু করলে গ্রামবাসী মুহূর্তের মধ্যে পালিয়ে যায়।পরবর্তীতে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে।তবে এঘটনায় কোন হতাহতি হয়নি।

ঘটনাটি শনিবার সকালে উপজেলার চাপড়া ইউনিয়নের ধর্মপাড়া বাজারে ঘটেছে।

সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম রাশিদুল ইসলাম টোটো’র লিজ নেওয়া পুকুর থেকে শুক্রবার বিকেলে ধর্মপাড়া গ্রামের হাবুর ছেলে নয়ন (১৭) একটি মাছ ধরে।বিষয়টি জানতে পেরে টোটো’র ছেলে টগর নয়নের বাড়িতে গেলে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয় এবং টগর মাছ নিয়ে চুরির অপবাদ দিয়ে চলে আসে।এর সুত্রে ধরে আজ শনিবার সকালে নয়ন কাজের উদ্দেশ্যে কুষ্টিয়া যাওয়ার পথে চাপড়া এলাকায় পৌছালে টোটো’র ছেলে টগর নয়নকে বেধরক মারপিট করে।এরপর নয়ন বাড়িতে এসে বিষয়টি জানালে নয়নের স্বজনরা সকাল ১০ টা ২০ মিনিটের দিকে ধর্মপাড়া বাজারে টোটো’র সাথে হাতাহাতি করলে বিষয়টি জানাজানি হলে টোটো’র সমর্থিত প্রায় ২০০ থেকে ২৫০ জন লোকজন ঢাল সরকি, রাম দা, হাসুয়া, লাঠিসোঠা নিয়ে ধর্মপাড়া বাজারে পৌছালে খবর পেয়ে একজন সংবাদকর্মীও ঘটনাস্থলে পৌছায়ে দৃশ্যধারণ শুরু করলে মুহূর্তের মধ্যে লোকজন ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।এরপরই পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

এবিষয়ে এস এম রাশিদুল ইসলাম টোটো বলেন, নয়নরা নিয়মিত আমার পুকুর থেকে মাছ চুরি করে।শুক্রবার মাছসহ ধরে আমার ছেলে টগর নয়নের বাড়িতে গেলে ওরা সবাই মিলে আমার ছেলেকে মারধর করে।এরজেরে আজ সকালে আমার ছেলে চাপড়া থেকে নয়নকে দুইচার চর ধাপ্পর দিলে সকাল ১০ টার দিকে নয়ন, শাওন, ইসমাইল,আলমসহ ৪/৫ জন ধর্মপাড়া বাজারে আমাকে পথ আটকে ধরলে হাতাহাতি হয় এবং কাছে থাকা ব্যবসায়ী এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে গেলে আমার সমর্থকেরা ঘটনাস্থলে আসলে একটু উত্তেজনা হয়।তবে মারামারি হয়নি।

এঘটনায় নয়নের স্বজনরা বলেন,একটি ভেসে আসা মাছ ধরাকে কেন্দ্র টোটো ও তার ছেলে শুক্রবার বিকেলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং শনিবার সকালে প্রথমে নয়নকে বেধরক মারপিট করে এবং পরে ওর মা মর্জিনাকে মেরে আহত করে।মর্জিনা এখন হাসপাতালে ভর্তি।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে থানার ওসি মজিবুর রহমান বলেন, মাছ ধরাকে কেন্দ্র একটু উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছিল।তবে সাংবাদিকদের ক্যামেরার কারনে গ্রামবাসী ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।তিনি আরো বলেন, এঘটনায় উভয় অভিযোগ দায়ের প্রক্রিয়াধীন।তদন্ত স্বাপক্ষে আইনী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।