ঢাকাSaturday , 4 December 2021
  1. epaper
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও অপরাধ
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইতিহাস ঐতিহ্য
  6. ইসলামি দিগন্ত
  7. কুষ্টিয়ার সংবাদ
  8. কৃষি দিগন্ত
  9. খেলাধুলা
  10. গণমাধ্যম
  11. জনদূর্ভোগ
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. তথ্য প্রযুক্তি
  15. দিগন্ত এক্সক্লুসিভ

কুষ্টিয়ায় ৯৪ শতাংশ ভোট পড়া কেন্দ্রে নৌকায় ভোট দেননি কেউ

Link Copied!

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নের জোতাশাহী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ভোটার ১ হাজার ৫৪৬ জন, ভোট পড়েছে ১ হাজার ৪৪৬টি। শতকরা হিসাবে দাঁড়ায় ৯৪ ভাগ। ১ হাজার ৪৪৬ ভোটের মধ্যে ১ হাজার ৪২৭টি ভোট পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী, বাকি ১৯টি ভোট বাতিল হয়েছে।

তৃতীয় ধাপের সদ্য সমাপ্ত ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী একটিও ভোট পাননি। এমনকি সংসদীয় বিরোধী দল জাতীয় পার্টির (জাপা) লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থীও কোনো ভোট পাননি। আরও একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন আনারস প্রতীকের, তিনিও ভোট পাননি।

উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গত ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে দৌলতপুরের চিলমারী ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ছিলেন সৈয়দ আহম্মেদ। তিনি টানা দুবারের চেয়ারম্যান। এ ছাড়া জাতীয় পার্টির জহুরুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটরসাইকেল প্রতীকে আবদুল মান্নান ও আনারস প্রতীকে নুরুজ্জামান নির্বাচন করেন। ভোট শেষে ফলাফলে আবদুল মান্নান ৭ হাজার ৮৯৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার প্রার্থী ৬ হাজার ৩৬১ ভোট পেয়েছেন।

কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, চিলমারী ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৫ হাজার ৫২৯ জন। চেয়ারম্যান পদে ভোট দিয়েছেন ১৪ হাজার ৩৫৮ জন, ভোট পড়েছে ৯২ শতাংশ। এর মধ্যে জোতাশাহী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকে একটিও ভোট পড়েনি। জোতাশাহী মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দুই ভোট, উদয়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তিন ভোট, চরবাজুমারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তিন ভোট, সামার তিলগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পাঁচ ভোট ও চর ভবানন্দদিয়াড় কেন্দ্রে নৌকায় মাত্র পাঁচ ভোট পড়েছে।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী সৈয়দ আহম্মেদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘ওই কেন্দ্রসহ আরও কয়েকটি কেন্দ্র থেকে নৌকার এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছিল। মোটরসাইকেলের লোকজন ভোট মেরে নিয়েছে। এসব ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নিতে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দিয়েছি।’ সুত্র প্রথম আলো

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।